CePrA->Banking News Link
Banking News Link

29 November 2020

Top Stories

সাধারণ মানুষকে ঋণ দেওয়া ছেড়ে দিচ্ছে ব্যাংক!


বাংলা ট্রিবিউন, 29 Nov, 2020

. সাধারণ মানুষকে ঋণ দেওয়া ছেড়ে দিয়েছে ব্যাংকগুলো। কোনও কোনও ব্যাংক এরই মধ্যে ঋণ বিতরণের পদ্ধতিও ভুলে যাচ্ছে! ঋণ বিতরণে ব্যাংকের এতটাই অনীহা যে, তারা সরকারের ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের ঋণেও গড়িমসি করছে। এ নিয়ে সাধারণ মানুষের পাশাপাশি ব্যবসায়ীদের  মাঝেও  প্রতিক্রিয়া দে ...More

Banking

Bank deposits drop 30pc amid COVID-19


New Age, 28 Nov, 2020

Deposits in banks accounts, opened for disbursement of funds under the government’s social safety net programmes, dropped by 30.13 per cent or Tk 261.1 crore... ...More

Economy

গ্রামীণ অর্থনীতির বিস্ময়কর রূপান্তরে আর্থিক অন্তর্ভুক্তি


বণিক বার্তা, 23 Nov, 2020

সামনেই বাংলাদেশের সুবর্ণজয়ন্তী। গত পাঁচ দশকে আমরা অনেকটা পথ পাড়ি দিয়ে এসেছি। আজকে যখন পেছন ফিরে তাকাই, তখন দেখতে পাই বহু চড়াই-উতরাই ডিঙিয়ে গত পাঁচ দশকে আমরা আসলেই অনেকটা পথ অতিক্রম করেছি। প্রতিকূল বিশ্বব্যবস্থার প্রেক্ষাপটে দেশের ভেতরে ও বাইরের অসংখ্য চ্যালেঞ্জ অতিক্রম করে বাংলাদেশ আজ নিজেকে অন্য এক উচ্চতায় নিয়ে এসেছে। এক সময়ের ...More

Stock

Dhaka stocks dip for 3rd week


New Age, 29 Nov, 2020

Dhaka stocks dropped last week, extending the losing streak to the third week, as investors continued selling shares amid sluggishness on the market while general... ...More

Article and Interview

ক্যাশ ওয়াকফ, এক চিরন্তন পুঁজি


নয়া দিগন্ত, 28 Nov, 2020

পারপিচুয়াল ক্যাপিট্যাল বা চিরন্তন পুঁজি। গতানুগতিক পশ্চিমা অর্থনীতিতে এ ধরনের কিছু নেই। তবে ইসলামিক অর্থনীতিতে এটা হতে পারে। এই চিরন্তর মানে অবিনাশী নয়। এটা হলো... ...More

Trade and Industry

জামানত ছাড়া ঋণ পাবেন অতিক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা


আমাদেরসময়.কম, 27 Sep, 2020

শরীফ শাওন: [৩] প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ৪ শতাংশ সুদে এ ঋণ বিতরণ করা হবে। আইএফআইসি ব্যাংক থেকে সর্বোচ্চ ৫০ হাজার টাকা পর্যন্ত ঋণ নেয়া যাবে। সরকার প্রণোদনা ঋণের বাকি ৫ শতাংশ সুদ বহন করবে। [৪] সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন বলেন, ডাব ও ফল বিক্রেতার মত অতিক্ষুদ্র ব্যবসায়ী, যারা ফুটপাতে দাঁড়িয়ে সবজি বা অন্যান্য পণ্য বিক্রি […] ...More

International

শীর্ষ ধনীর তালিকায় নতুন চমক ইলোন মাস্ক


বণিক বার্তা, 29 Nov, 2020

চলতি বছরটা ইলোন মাস্কের জন্য যেন রোলার কোস্টারের মতো। এ বছরের শুরুতে জানুুয়ারিতে বিশ্বের শীর্ষ ধনীর তালিকায় তার অবস্থান ছিল ৩৫ নম্বরে। কিন্তু মাত্র ১০ মাসের মধ্যে তিনি এগিয়ে ইলোন ৩৩ ধাপ। ...More

Miscellaneous

ব্যাংকারদের ডিপ্লোমা পরীক্ষা স্থগিত


প্রথম আলো, 29 Nov, 2020

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে ব্যাংকারদের ব্যাংকিং ডিপ্লোমা পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। আগামী ৪ ও ১১ ডিসেম্বর এই পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল ...More

Disclaimer: Banking News Link, an initiative of Center for Professional Advancement, contains links to important banking and business news. However, providing a link does not necessarily imply an endorsement of the contents of the linked site.
Old news is available from 21-06-2016

News Headlines at a Glance

সাধারণ মানুষকে ঋণ দেওয়া ছেড়ে দিচ্ছে ব্যাংক!
ব্যাংকারদের ডিপ্লোমা পরীক্ষা স্থগিত
শীর্ষ ধনীর তালিকায় নতুন চমক ইলোন মাস্ক

Dhaka stocks dip for 3rd week

রফিক সাহেবের মুখটা তেতো হয়ে আছে। নিউজটা খুঁজে বের করা দরকার। তার আগে তিনি পিয়ন নাজমুলকে ডেকে চা দিতে বললেন। নাজমুল চোখে মুখে বিস্ময় নিয়ে চা আনতে বেরিয়ে গেলো।

এখন বেলা এগারটা। রফিক সাহেব এই সময়ে চা খান না। তিনি সকাল সাড়ে নয়টার মধ্যেই অফিসে ঢুকেন। ঢুকেই এক কাপ চা খান। আরেক কাপ চা খান দুপুরে খাবারের পর।

শুধু চা এর ব্যাপারেই না, অফিসের সব কাজেই তিনি একটা নিয়ম মেনে চলেন। তিনি খুব মেধাবী না, তবে নিয়মনিষ্ঠ। নিয়মানুবর্তিতার ফল তিনি হাতে হাতে পেয়েছেন।

একটা ঘটনা তাঁর মনে পড়ছে। তাঁর ব্যাংকিং ক্যারিয়ারের শুরুটা হয়েছিল হেড অফিসে। কাজ করতেন বড় স্যারদের সাথে। তাদের মধ্যে একজন একদিন উনাকে ডেকে পার্সোনাল সার্কুলার ফাইলটা দিয়ে বললেন, "রফিক সাহেব, এই সার্কুলারগুলো কপি করে নিজের জন্য একটা ফাইল বানিয়ে নিন।"

রফিক সাহেব সার্কুলার ফাইলটা কপি করে নিলেন। তারপর ফাইলটা ফেলে না রেখে সার্কুলারগুলো পড়ে ফেললেন। সেই থেকে নতুন কোন সার্কুলার এলেই তিনি নিজের সার্কুলার ফাইলটা আপডেট করে ফেলতেন। একটা কপি সেই স্যারকেও দিতেন। স্যার খুব খুশি হতেন।

এই ছোট্ট একটি অভ্যাস তাকে অনেক সুবিধা দিয়েছিল। অফিসের সবাই জানতেন রফিক সাহেবের কাছে আপডেটেড সার্কুলার আছে। সবাই ছোট বড় নানা বিষয়ের সার্কুলারের জন্য রফিক সাহেবের কাছে আসতেন। রফিক সাহেবের লাভটা হত যে- তিনি সবসময়ই বিষয়গুলোর চর্চার মধ্যে থাকতেন এবং আপডেটেড থাকতেন। বড় স্যাররা পর্যন্ত তাকে সমীহের চোখে দেখতেন। তিনি কিছু বললে ওটাই মোটামুটি ফাইনাল বলে ধরে নেয়া হত।

'স্যার পানি দেব?' চা রাখতে রাখতে নাজমুল জিজ্ঞাসা করল।
'না, ঠিক আছে' বলে রফিক সাহেব নিজেই পানি ঢেলে খেয়ে নিলেন।

দীর্ঘ পঁচিশ বছরের ব্যাংকিং ক্যারিয়ারে তিনি হেড অফিস থেকে ব্রাঞ্চে ঘুরে আবার হেড অফিসে আইডি (ইন্টারন্যাশনাল ডিভিশন)-এর হেড। কিন্তু ইদানীং চিত্রটা পাল্টে যাচ্ছে।

আজকের ব্যাপারটাই ধরা যাক। সকাল দশটায় ম্যানেজমেন্ট কমিটির মিটিং ছিল। এমডি সাহেব মিটিংয়ে আজকের একটা নিউজ দিয়ে আলোচনা শুরু করলেন। একটা নামকরা পত্রিকা তাদের ব্যাংক নিয়ে একটি নেগেটিভ রিপোর্ট করেছে। কিছু তথ্য-উপাত্তও তারা দিয়েছে।

রফিক সাহেব নিউজটা পড়েননি। একটি ভালো মানের ইংরেজি পত্রিকা উনি প্রতিদিন পড়েন। কিন্তু আলোচিত নিউজটি অন্য পত্রিকার।

এমডি সাহেব আলোচনার মাঝে বারবার উৎসুক চোখে রফিক সাহেবের দিকে তাকাতে লাগলেন কিছু শোনার অপেক্ষায়। শেষে বলেই ফেললেন, 'কি রফিক সাহেব, আপনি কী বলেন?'

রফিক সাহেব কী বলবেন ভাবছেন। এমডি সাহেব হেঁজিপেঁজি লোক না। আন্দাজে কিছু বললে তিনি ঠিকই ধরে ফেলবেন। এত ব্যস্ততার মাঝেও তিনি প্রচুর পড়াশোনা করেন। বাংলাদেশ ব্যাংক যখন প্রথম Basel-II এর গাইডলাইনটা দিয়েছিল, তখন উনি ডিএমডি। দিনের একটা সময়ে বোর্ডরুমের দরজা বন্ধ করে গাইডলাইনটা পড়তেন। ব্যাংকে উনিই সম্ভবত সবার আগে গাইডলাইনটা পড়ে শেষ করেছিলেন।

'স্যার, নিউজটা আমার পড়া হয়নি' রফিক সাহেব উত্তর দিলেন।

ব্যাপারটা এখানেই স্বাভাবিকভাবে শেষ হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু হলো না। পাশ থেকে রইস সাহেব বললেন, 'স্যার, আমাদের বয়স হয়ে যাচ্ছে তো, এখন আর আগের মত আপডেটেড থাকতে পারি না'।

কথাগুলো যতটুকু নির্দোষ সমবেদনা বলে মনে হচ্ছে, আসলে তা না। রইস সাহেব কখনই আপডেটেড থাকেন না। এর জন্য মাঝে মাঝে এমডি সাহেবের কাছে ধমকও খান। তাতে অবশ্য কোন কাজ হয় বলে মনে হয় না। আজ যখন দেখা গেলো রফিক সাহেব নিউজটা পড়েননি, তখন রইস সাহেব টেনে রফিক সাহেবকে নিজের কাতারে নামিয়ে আনতে চাইলেন।

রফিক সাহেব বিনয়ী মানুষ। নিজেকে রইস সাহেবের চেয়ে শ্রেষ্ঠ তিনি কখনই ভাবতে চান না। কিন্তু তাঁর আপত্তি অন্য জায়গায়। বয়স হয়ে যাচ্ছে এই অজুহাতে তিনি অন্য কারো করুণার পাত্র হতে চান না। এমডি সাহেব এই বয়সে পারলে তিনি কেন পারবেন না?

আপডেটেড থাকার জন্য আরও কয়েকটা পত্রিকা তিনি পড়তে পারেন ঠিকই; কিন্তু শুধু নিউজ পড়ে এত সময় তিনি ব্যয় করতে চান না। এতে তাঁর অন্যান্য কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটবে। তা ছাড়া কয়টা পত্রিকা তিনি পড়বেন? ভালো পত্রিকার সংখ্যাও তো কম না।

'আসসালামু আলাইকুম। স্যার আসব?' উনার চিন্তায় ছেদ পড়ল। হাসি হাসি মুখে হাসান দরজায় উঁকি দিল।
'ওয়াআলাইকুমুসসালাম। জি আসেন।'

হাসানকে দেখলেই রফিক সাহেবের মনটা ভালো হয়ে যায়। সারাক্ষণ এত হাসি হাসি মুখ করে ছেলেটা থাকে কিভাবে? মুখের তেতো ভাবটা অনেকটাই কেটে গেলো হাসানের হাসি দেখে।

হাতের ফাইলটা এগিয়ে দিতে দিতে হাসান বলল, 'স্যার নিউজটা পড়েছেন?'
'আপনারা এত নিউজ রাখেন কিভাবে?' রফিক সাহেবের অবাক জিজ্ঞাসা।
'কি যে বলেন স্যার। আপনিই তো সব সময় আমাদের আপডেটেড থাকতে বলেন।' লাজুক হেসে বলল হাসান।
'তা ঠিক আছে। আপনি কি পত্রিকাটি নিয়মিত পড়েন?'
'জি না স্যার। আমি অন্য পত্রিকা পড়ি; কিন্তু সাথে প্রতিদিনই ব্যাংকিং নিউজ লিংক পড়ি। ওখানেই নিউজটা পেয়েছিলাম।'
'ব্যাংকিং নিউজ লিংক কী?'
'ও আচ্ছা স্যার, আপনাকে আগে বলা হয়নি। ব্যাংকিং নিউজ লিংক একটা ওয়েবপেইজ। এখানে প্রতিদিনের ব্যাংকিং নিউজের লিংক থাকে। একনজরেই সব নিউজ পাওয়া যায়।'
'তাই নাকি!' খুশি হলেন রফিক সাহেব।

হাসানের নিকট থেকে এড্রেস নিয়ে তিনি ওয়েবপেইজটিতে ঢুকলেন। সমস্যার এত সহজ সমাধান পেয়ে তিনি মুগ্ধ। মুখের তেতো ভাব পুরোটাই কেটে গেলো রফিক সাহেবের।

[ঘটনাটি কাল্পনিক।]



Leave your Comments

Comment Policy