CePrA->Banking News Link
Banking News Link

04 July 2020

Top Stories

পরিপালনে ব্যাংকগুলোর আরো সক্রিয়তা কাম্য


বণিক বার্তা, 04 Jul, 2020

চলমান কভিড-১৯ মহামারী সৃষ্ট বিপর্যয় থেকে অর্থনীতির দ্রুত ঘুরে দাঁড়ানো নির্ভর করছে সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের সুষ্ঠু বাস্তবায়নের ওপর। কিন্তু বাস্তবতা হলো, আলোচ্য প্যাকেজ বাস্তবায়নে ব্যাংকগুলোর দিক থেকে কিছুটা শৈথিল্য দৃশ্যমান। বিশেষত তারা বৃহৎ প্রতিষ্ঠিত শিল্পের জন্য অর্থছাড়ে যতটা আগ্রহী, এসএমই শিল্পের জন্য ততটা নয়। ফলে ...More

Banking

গভর্নরহীন কেন্দ্রীয় ব্যাংক


যায় যায় দিন, 04 Jul, 2020

বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর ফজলে কবিরের মেয়াদ শেষ হয়েছে গতকাল শুক্রবার। বৃহস্পতিবার গভর্নর হিসেবে ছিল তার শেষ কার্যদিবস। এদিকে গভর্নরের অবর্তমানে দুই ডেপুটি গভর্নরকে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দিয়েছে অর্থ মন্ত্রণালয়। বর্তমানে অর্থমন্ত্রীও দেশে নেই। ...More

No governor at BB as Fazle’s tenure expires


New Age, 04 Jul, 2020

The contractual appointment of Bangladesh Bank governor Fazle Kabir expired on Friday as he became 65 years old on the day. According to the Bangladesh Bank Order 1972, no person can remain... ...More

Economy

Businesses must display BIN on premises


New Age, 02 Jul, 2020

It has been made mandatory for Value Added Tax-registered businesses and shops to display their business identification certificates on their premises from now on. Business and shop owners will face legal action for not exhibiting the... ...More

Stock

আগস্টে ইস্যু করতে হবে ৭১৯ কোটি শেয়ার


বণিক বার্তা, 04 Jul, 2020

করপোরেট সুশাসন ও হিসাবমান পরিপালনের দিক দিয়ে তুলনামূলক পিছিয়ে থাকা রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানিগুলো বছরের পর বছর ধরে সরকারের কাছ থেকে ইকুইটি হিসেবে অর্থ নিলেও এর বিপরীতে সরকারের অনুকূলে শেয়ার ইস্যু করেনি। চলতি বছরের ১১ ফেব্রুয়ারি ফিন্যান্সিয়াল রিপোর্টিং কাউন্সিলের জারি করা নির্দেশনায় ছয় মাসের মধ্যে কোম্পানিগুলোকে শেয়ার মানি ডিপোজিটের বিপরীতে শেয়ার ইস্যু করতে বলা হয়। এতে চলতি বছরের আগস্টের মধ্যে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত রাষ্ট্রায়ত্ত ছয় কোম্পানির পুঞ্জীভূত ৭ হাজার ১৯৪ কোটি টাকা শেয়ার মানি ডিপোজিটের বিপরীতে ১০ টাকা অভিহিত মূল্য হিসেবে ইস্যু করতে হবে মোট ৭১৯ কোটি শেয়ার। ...More

শর্তের জালেই থাকলো শেয়ারবাজারে কালো টাকার বিনিয়োগ


বাংলা ট্রিবিউন, 04 Jul, 2020

 . . কালো টাকা বিনিয়োগে শর্ত শিথিল করা হলেও একবছরের শর্তের জাল থেকে বেরুতে পারলো না দেশের শেয়ারবাজার। ফলে অচিরেই যে বাজার স্বাভাবিক হবে— এমন ধারণা করছেন না বিশ্লেষকরা। তবে সুশাসন নিশ্চিত করা গেলে ধীরে ধীরে বাজার স্বাভাবিক হবে বলে মনে করেন তারা।. এদিকে গত সপ্তাহে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদে ...More

Article and Interview

Trends of excess liquidity versus banks' real lending capacity


The Financial Express, 02 Jul, 2020

The government offered a number of bailout packages worth more thanTk.1.00 trillion to cope with the adverse impacts of COVID-19. Obviously the onus of bulk financing has fallen on the banking sector. Banks are now hard-pressed to finance the packages. With a view to facilitating the implementation ...More

Trade and Industry

BB allows exports under open account credit terms with guarantee


New Age, 02 Jul, 2020

The Bangladesh Bank has allowed exports on sales contracts under open account credit terms with external payment guarantee. On Tuesday, the central bank issued a circular in this regard, stating that... ...More

International

Eight major Canadian banks join Facebook ad boycott


New Age, 04 Jul, 2020

Eight major Canadian banks said on Thursday that they would heed a call by other major global advertisers to boycott Facebook, demanding the social network do more to tackle racist and other... ...More

Miscellaneous

এক লাখ কোটি টাকা আমানতের মাইলফলক অতিক্রম ইসলামী ব্যাংকের


নয়া দিগন্ত, 02 Jul, 2020

ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এখন এক লাখ কোটি টাকা আমানতের ব্যাংক। ৩০ জুন মাইলফলক অতিক্রম করেছে দেশের শীর্ষ এই বেসরকারি বাণিজ্যিক ব্যাংক। ২০১৯ সালে ব্যাংকের... ...More

Disclaimer: Banking News Link, an initiative of Center for Professional Advancement, contains links to important banking and business news. However, providing a link does not necessarily imply an endorsement of the contents of the linked site.
Old news is available from 21-06-2016

News Headlines at a Glance

পরিপালনে ব্যাংকগুলোর আরো সক্রিয়তা কাম্য
আগস্টে ইস্যু করতে হবে ৭১৯ কোটি শেয়ার
শর্তের জালেই থাকলো শেয়ারবাজারে কালো টাকার বিনিয়োগ
গভর্নরহীন কেন্দ্রীয় ব্যাংক

No governor at BB as Fazle’s tenure expires
Eight major Canadian banks join Facebook ad boycott

রফিক সাহেবের মুখটা তেতো হয়ে আছে। নিউজটা খুঁজে বের করা দরকার। তার আগে তিনি পিয়ন নাজমুলকে ডেকে চা দিতে বললেন। নাজমুল চোখে মুখে বিস্ময় নিয়ে চা আনতে বেরিয়ে গেলো।

এখন বেলা এগারটা। রফিক সাহেব এই সময়ে চা খান না। তিনি সকাল সাড়ে নয়টার মধ্যেই অফিসে ঢুকেন। ঢুকেই এক কাপ চা খান। আরেক কাপ চা খান দুপুরে খাবারের পর।

শুধু চা এর ব্যাপারেই না, অফিসের সব কাজেই তিনি একটা নিয়ম মেনে চলেন। তিনি খুব মেধাবী না, তবে নিয়মনিষ্ঠ। নিয়মানুবর্তিতার ফল তিনি হাতে হাতে পেয়েছেন।

একটা ঘটনা তাঁর মনে পড়ছে। তাঁর ব্যাংকিং ক্যারিয়ারের শুরুটা হয়েছিল হেড অফিসে। কাজ করতেন বড় স্যারদের সাথে। তাদের মধ্যে একজন একদিন উনাকে ডেকে পার্সোনাল সার্কুলার ফাইলটা দিয়ে বললেন, "রফিক সাহেব, এই সার্কুলারগুলো কপি করে নিজের জন্য একটা ফাইল বানিয়ে নিন।"

রফিক সাহেব সার্কুলার ফাইলটা কপি করে নিলেন। তারপর ফাইলটা ফেলে না রেখে সার্কুলারগুলো পড়ে ফেললেন। সেই থেকে নতুন কোন সার্কুলার এলেই তিনি নিজের সার্কুলার ফাইলটা আপডেট করে ফেলতেন। একটা কপি সেই স্যারকেও দিতেন। স্যার খুব খুশি হতেন।

এই ছোট্ট একটি অভ্যাস তাকে অনেক সুবিধা দিয়েছিল। অফিসের সবাই জানতেন রফিক সাহেবের কাছে আপডেটেড সার্কুলার আছে। সবাই ছোট বড় নানা বিষয়ের সার্কুলারের জন্য রফিক সাহেবের কাছে আসতেন। রফিক সাহেবের লাভটা হত যে- তিনি সবসময়ই বিষয়গুলোর চর্চার মধ্যে থাকতেন এবং আপডেটেড থাকতেন। বড় স্যাররা পর্যন্ত তাকে সমীহের চোখে দেখতেন। তিনি কিছু বললে ওটাই মোটামুটি ফাইনাল বলে ধরে নেয়া হত।

'স্যার পানি দেব?' চা রাখতে রাখতে নাজমুল জিজ্ঞাসা করল।
'না, ঠিক আছে' বলে রফিক সাহেব নিজেই পানি ঢেলে খেয়ে নিলেন।

দীর্ঘ পঁচিশ বছরের ব্যাংকিং ক্যারিয়ারে তিনি হেড অফিস থেকে ব্রাঞ্চে ঘুরে আবার হেড অফিসে আইডি (ইন্টারন্যাশনাল ডিভিশন)-এর হেড। কিন্তু ইদানীং চিত্রটা পাল্টে যাচ্ছে।

আজকের ব্যাপারটাই ধরা যাক। সকাল দশটায় ম্যানেজমেন্ট কমিটির মিটিং ছিল। এমডি সাহেব মিটিংয়ে আজকের একটা নিউজ দিয়ে আলোচনা শুরু করলেন। একটা নামকরা পত্রিকা তাদের ব্যাংক নিয়ে একটি নেগেটিভ রিপোর্ট করেছে। কিছু তথ্য-উপাত্তও তারা দিয়েছে।

রফিক সাহেব নিউজটা পড়েননি। একটি ভালো মানের ইংরেজি পত্রিকা উনি প্রতিদিন পড়েন। কিন্তু আলোচিত নিউজটি অন্য পত্রিকার।

এমডি সাহেব আলোচনার মাঝে বারবার উৎসুক চোখে রফিক সাহেবের দিকে তাকাতে লাগলেন কিছু শোনার অপেক্ষায়। শেষে বলেই ফেললেন, 'কি রফিক সাহেব, আপনি কী বলেন?'

রফিক সাহেব কী বলবেন ভাবছেন। এমডি সাহেব হেঁজিপেঁজি লোক না। আন্দাজে কিছু বললে তিনি ঠিকই ধরে ফেলবেন। এত ব্যস্ততার মাঝেও তিনি প্রচুর পড়াশোনা করেন। বাংলাদেশ ব্যাংক যখন প্রথম Basel-II এর গাইডলাইনটা দিয়েছিল, তখন উনি ডিএমডি। দিনের একটা সময়ে বোর্ডরুমের দরজা বন্ধ করে গাইডলাইনটা পড়তেন। ব্যাংকে উনিই সম্ভবত সবার আগে গাইডলাইনটা পড়ে শেষ করেছিলেন।

'স্যার, নিউজটা আমার পড়া হয়নি' রফিক সাহেব উত্তর দিলেন।

ব্যাপারটা এখানেই স্বাভাবিকভাবে শেষ হওয়ার কথা ছিল, কিন্তু হলো না। পাশ থেকে রইস সাহেব বললেন, 'স্যার, আমাদের বয়স হয়ে যাচ্ছে তো, এখন আর আগের মত আপডেটেড থাকতে পারি না'।

কথাগুলো যতটুকু নির্দোষ সমবেদনা বলে মনে হচ্ছে, আসলে তা না। রইস সাহেব কখনই আপডেটেড থাকেন না। এর জন্য মাঝে মাঝে এমডি সাহেবের কাছে ধমকও খান। তাতে অবশ্য কোন কাজ হয় বলে মনে হয় না। আজ যখন দেখা গেলো রফিক সাহেব নিউজটা পড়েননি, তখন রইস সাহেব টেনে রফিক সাহেবকে নিজের কাতারে নামিয়ে আনতে চাইলেন।

রফিক সাহেব বিনয়ী মানুষ। নিজেকে রইস সাহেবের চেয়ে শ্রেষ্ঠ তিনি কখনই ভাবতে চান না। কিন্তু তাঁর আপত্তি অন্য জায়গায়। বয়স হয়ে যাচ্ছে এই অজুহাতে তিনি অন্য কারো করুণার পাত্র হতে চান না। এমডি সাহেব এই বয়সে পারলে তিনি কেন পারবেন না?

আপডেটেড থাকার জন্য আরও কয়েকটা পত্রিকা তিনি পড়তে পারেন ঠিকই; কিন্তু শুধু নিউজ পড়ে এত সময় তিনি ব্যয় করতে চান না। এতে তাঁর অন্যান্য কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটবে। তা ছাড়া কয়টা পত্রিকা তিনি পড়বেন? ভালো পত্রিকার সংখ্যাও তো কম না।

'আসসালামু আলাইকুম। স্যার আসব?' উনার চিন্তায় ছেদ পড়ল। হাসি হাসি মুখে হাসান দরজায় উঁকি দিল।
'ওয়াআলাইকুমুসসালাম। জি আসেন।'

হাসানকে দেখলেই রফিক সাহেবের মনটা ভালো হয়ে যায়। সারাক্ষণ এত হাসি হাসি মুখ করে ছেলেটা থাকে কিভাবে? মুখের তেতো ভাবটা অনেকটাই কেটে গেলো হাসানের হাসি দেখে।

হাতের ফাইলটা এগিয়ে দিতে দিতে হাসান বলল, 'স্যার নিউজটা পড়েছেন?'
'আপনারা এত নিউজ রাখেন কিভাবে?' রফিক সাহেবের অবাক জিজ্ঞাসা।
'কি যে বলেন স্যার। আপনিই তো সব সময় আমাদের আপডেটেড থাকতে বলেন।' লাজুক হেসে বলল হাসান।
'তা ঠিক আছে। আপনি কি পত্রিকাটি নিয়মিত পড়েন?'
'জি না স্যার। আমি অন্য পত্রিকা পড়ি; কিন্তু সাথে প্রতিদিনই ব্যাংকিং নিউজ লিংক পড়ি। ওখানেই নিউজটা পেয়েছিলাম।'
'ব্যাংকিং নিউজ লিংক কী?'
'ও আচ্ছা স্যার, আপনাকে আগে বলা হয়নি। ব্যাংকিং নিউজ লিংক একটা ওয়েবপেইজ। এখানে প্রতিদিনের ব্যাংকিং নিউজের লিংক থাকে। একনজরেই সব নিউজ পাওয়া যায়।'
'তাই নাকি!' খুশি হলেন রফিক সাহেব।

হাসানের নিকট থেকে এড্রেস নিয়ে তিনি ওয়েবপেইজটিতে ঢুকলেন। সমস্যার এত সহজ সমাধান পেয়ে তিনি মুগ্ধ। মুখের তেতো ভাব পুরোটাই কেটে গেলো রফিক সাহেবের।

[ঘটনাটি কাল্পনিক।]



Leave your Comments

Comment Policy